হিজাব শুনানি চলছে, ওআইসি চাইছে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ

বরং এটি যে এক নিরীহ ধর্মাচরণ, কর্ণাটক হাইকোর্টে মঙ্গলবার আবেদনকারীদের

আইনজীবীরা সওয়াল জবাবে বারবার তা তুলে ধরেন। তাঁরা বলেন, হিজাব পরার কারণে ঐক্য বিঘ্নিত হয় না।

সমতা বিনষ্ট হয় না। আইনশৃঙ্খলার অবনতিও ঘটে না।

তা ছাড়া সরকারও এখন পর্যন্ত ইউনিফর্ম নীতি তৈরি করেনি।

এই পরিস্থিতিতে হিজাবসংক্রান্ত যে অন্তর্বর্তী নির্দেশ রাজ্য সরকার দিয়েছে,

হিজাব শুনানি চলছে, ওআইসি চাইছে জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ

তা বদলের আরজি জানানো হয়। সেই নির্দেশ মেনে স্কুল কর্তৃপক্ষ ছাত্রীদের হিজাব পরে

শিক্ষালয়ে প্রবেশের অনুমতি দিচ্ছে না। আজ রাজ্যের কলেজও খুলে যাচ্ছে।

আইনজীবী দেবদত্ত কামাথ মঙ্গলবারের শুনানির সময় দক্ষিণ আফ্রিকা ও কানাডার

দুই আদালতের দুটি রায়ের প্রতি বিচারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার আদালত সেখানকার এক স্কুলের এক দক্ষিণ ভারতীয় হিন্দু ছাত্রীকে

নাকছাবি পরে স্কুলে আসার অনুমতি দিয়েছিলেন। কানাডার আদালত এক শিখ ছাত্রকে কৃপাণ

নিয়ে ক্লাস করার অনুমতি দিয়েছিলেন। প্রধান বিচারপতির উদ্দেশে তিনি বলেন,

আপনি জানতে চেয়েছিলেন এর আগে রাজ্যে হিজাব পরে ছাত্রীরা স্কুলে আসত কি না। উত্তর হলো,

বহুদিন ধরেই তারা এভাবে আসছে। কখনো কোনো গোলমাল হয়নি।

স্কুলের শৃঙ্খলাও কখনো ভঙ্গ হয়নি। তিনি বলেন, ভারতীয় সংবিধান সদর্থক ধর্মনিরপেক্ষতার কথা বলে।

 

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের পর হিজাব বিতর্কে এবার যোগ দিল ওআইসি। ওআইসির মহাসচিব হুসেন ইব্রাহিম তাহির সোমবার জাতিসংঘকে অনুরোধ করেছেন এই বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে।

উত্তরাখন্ডের হরিদ্বার থেকে হিন্দুত্ববাদের প্রবর্তকদের মুসলিম নিধনের ডাক দেওয়ার ঘটনায় ওআইসির টুইটারে ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশ করা হয়েছে। পাশাপাশি সামাজিক মাধ্যমে ভারতীয় মুসলমান মহিলাদের হেনস্তা এবং একই সঙ্গে কর্ণাটকে মুসলমান ছাত্রীদের হিজাব পরতে বাধা দেওয়ার ঘটনাতেও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

ওআইসি এর বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের মতো আন্তর্জাতিক মহলকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আরজি জানিয়েছে। ওআইসি একই সঙ্গে ভারতকেও বলেছে, মুসলমান সমাজের নিরাপত্তা ও মঙ্গলে সচেষ্ট হয়ে মুসলমানদের ব্যবহারিক জীবন রক্ষা করতে উদ্যোগী হতে।

আরও জানতে ভিজিট করুনঃ barta24live.com

About work

Check Also

যেখানে তদবির দরকার সেখানে চালাব পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যেখানে তদবির দরকার সেখানে চালাব পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যেখানে তদবির দরকার সেখানে চালাব পররাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, দেশের স্বার্থে যেখানে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.